পিঠের ব্যথা কমানোর সবচাইতে কার্যকরী উপায়

পেইন এন্ড পারালাইসিস-allhealthtipsbd.com

ইদানিং প্রচুর পরিমাণে মানুষ কম্পিউটারের সামনে সময় কাটান যা দিনের একটা বড় সময় ধরে হয়ে থাকে। আর একটানা বসে থাকার ফলে  তাদের ক্ষেত্রেই বেশি দেখা যায় ব্যাক পেইন বা পিঠের ব্যাথা। এই ব্যথা এড়াতে আবার খেয়ে থাকেন না না জাতের ওষুধ।কেউ বা আবার নিয়ে থাকেন নানান জাতের থেরাপি কিন্তু তার কোনটাই তেমন কাজে আশে না সময় ভাল থাকলেও তা আবার শুরো হয়ে যায়।

তাই আজ আমরা জানব একটি মাত্র উপায় যা আপনাকে রাখবে দীর্ঘ দিন সুস্থ্য আর তা হল ব্যায়াম। মনে হচ্ছে এই সামান্য ব্যায়াম কি করে পারে এত কঠিন একটা কাজ কে সহজে সারাতে,ঠিক তাই এই সামান্য ব্যায়াম এ পারে আপনাকে কঠিন জন্ত্রনা থেকে আরাম দিতে।

ব্যাক পেইন বা পিঠের ব্যথা নিয়ে বিভিন্ন গবেষণার থেকে দেখা যায়, ব্যায়াম ই হলো এক মাত্র ভালো সমাধান।্তবে হে শুধু ব্যাম ই নয় এর পাশাপাশি কিভাবে এ থেকে বাচা যায় তা সম্পর্কেও ভাল গ্যান থা ধরকার। কোন ভারি জিনিস ওঠানোর সময় কী করতে হবে, কী করে দাঁড়ালে বা বসলে ব্যাক পেইন কম হবে, মেয়েরা উচা হিলের জুতা  পরার ফলে বেশি পিঠে ব্যাথা হয় এ ক্ষেত্রে স্লিপার পরতে পারেন। এসব ব্যাপারে জানা থাকাটা জরুরী।

তাহলে পিঠের ব্যথা মারাত্মক আকার ধারণ করার আগে ঘরোয়া উপায়ে ব্যথা কমানো সম্ভব।

পিঠব্যথা কমানোর কার্যকরী কিছু উপায়ঃ

প্রতিদিনের ব্যায়াম এর পাশাপাশি আরও কিছু  টিপস আমরা গ্রহন করতে পারি।-
১। নারিকেল তেল আর কর্পূর গুঁড়া একসাথে  মিশিয়ে পাঁচ মিনিট চুলায় জ্বাল দিয়ে ঠান্ডা করে তা পিঠে মালিশ করা যেতে পারে এতে বেশ ভালো উপকার পাউয়া যায়।

২।গোসলে যাওয়ার আগে সরিষা তেল দিয়ে পিঠ মালিশ করুন। এর পর কুসুম গরম পানি দিয়ে গোসল করুন ভালো ফল পাবেন।

৩। এক বালতিকুসুম গরম পানিতে কয়েক ফোঁটা ইউক্যালিপটাস ওয়েল বা ল্যাভেন্ডার অয়েল মিশিয়ে গোসল করতে হবে। এতে কোমর ব্যথার পাশাপাশি শরীরের যেকোনো ব্যথা কমে আসবে। তাছাড়া শরীরের ক্লান্তি দূর করতেও সাহায্য করবে এই পানি। চাইলে বাথটাবে যেকোনো এসেনশিয়াল অয়েল মিশ্রিত কুসুম গরম পানি নিয়ে কিছুক্ষণ শুয়ে থাকলে শরীরের ক্লান্তি দূর হবে।

৪। যে কোনো ভেষজ তেল শরীর মালিশের জন্য বেশ উপকারী। পিঠব্যথা উপশমেও ভেষজ তেলের মালিশ সাহায্য করবে।

৫। এক গ্লাস হালকা গরম দুধে এক চিমটি হলুদ এবং খানিকটা মধু মিশিয়ে পান করতে হবে। পিঠ ব্যথা থেকে রেহাই পেতে নিয়মিত এই দুধ পান করতে হবে। তাছাড়া মাথাব্যথা, শরীর ব্যথা এবং ঠাণ্ডার সমস্যা উপশমেও সাহায্য করে হলুদ দুধ।

৬। টিভি দেখা বা গল্প বই পড়ার সময় পানি ভর্তি একটি হট ওয়াটার ব্যাগ পিঠের পিছনে কুশনের মতো দিয়ে রাখত হবে। পানির গরম ভাপ ব্যথা উপশমে সাহায্য করবে।

৭। একটি মোজা নিয়ে তার ভিতরে চাল ভর্তি করতে হবে। এরপর মোজার খোলা প্রান্তটি শক্ত করে বেঁধে  মাইক্রোওয়েভে তিন থেকে পাঁচ মিনিট গরম করে মোজাটির উপর শুয়ে থাকতে হবে। এ প্রক্রিয়ায় পিঠ ব্যথায় আরাম পাওয়া যায়।

৮।নারীদের ক্ষেত্রে পিঠে ব্যথার অন্যতম কারণ হিল পড়া। উঁচো জুতা পড়ে বেশি সময় হাঁটলে পিঠে মারাত্মক প্রভাব ফেলে। তাই হাই হিল কম পড়াই ভাল।

৯।চা বানানোর সময় গরম পানিতে কয়েক টুকরা আদা দিন। আদা চা পিঠ ব্যথার তীব্রতা কমাতে সাহায্য করবে।

১০। পিঠে ব্যথা দূর করতে ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা খুব জরুরি। ওজন বেশি হলে পিঠে ব্যথাসহ নানা রোগ হওয়ার সম্ভবনা থাকে। অতিরিক্ত ওজন হাঁটাচলার সময় পিঠে প্রভাব ফেলে। তাই বয়স ও উচ্চতা অনুযায়ী ওজন রাখা জরুরি।

About নওরীন জাহান

View all posts by নওরীন জাহান →