ব্যাক পেইন বা কোমর ব্যথা থেকে সুস্থ্য হয়ে উঠুন ওষুধ ছাড়াই

back pain

যে কোন মানুষ তার সমগ্র জীবনে একবারও কোমরে ব্যথা অনুভব করেন নাই এমনটা বিরল। নড়াচড়া বা চলাফেরা করার সময় কোমরের অবস্থান সঠিক না থাকলে কোমরে ব্যথা হয়ে থাকে। মেরুদণ্ডের নিচের হাড়ের মধ্যবর্তী তরুনাস্থি বা ডিস্কের বার্ধক্যজনিত পরিবর্তনের ফলে এ ব্যথার সুত্রপাত হয়। তরুনাস্থির এই পরিবর্তনের সাথে সাথে মেরুদণ্ডের নিচের দিকে সংবেদনশীলতার পরিবর্তন সাধিত হয়। সাধারণত এ পরিবর্তন ৩০ বছর বয়স থেকে শুরু হয় এবং অধিকাংশ ক্ষেত্রেই এ রোগের কোনও উপসর্গ থাকে না। তবে বয়স বাড়ার সাথে সাথে রোগের উপসর্গও বাড়তে থাকে।

ব্যাক পেইন কেন হয়? 
বিভিন্ন কারণেই ব্যাক পেইন হতে পারে। মূলত মেরুদণ্ড বা স্পাইন-সম্পর্কিত ব্যথাকেই আমরা ব্যাক পেইন বলা বলে থাকি। স্নায়ু, পেশি, হারজোড় ইত্যাদি কারণেই ব্যাক পেইন দেখা যায়। মেরুদণ্ডের পেশি, স্নায়ু, হাড়ের জোড়া যদি সঠিক অবস্থানে সঠিক কাজ না করতে পারে, তাহলে ব্যথা সৃষ্টি হয়।
কোমর ব্যথা সাধারণত মেরুদণ্ডের মাংসপেশি, লিগামেন্ট মচকানো বা আংশিক ছিঁড়ে যাওয়া,দুই কশেরুকার মধ্যবর্তী ডিস্ক সমস্যা, কশেরুকার অবস্থান পরিবর্তনের কারনে হয়ে থাকে। চলাফেরা জীবিকার ধরন, খুব বেশি ভার বা ওজন তলা, মেরুদণ্ডের অতিরিক্ত নড়াচড়া, একটানা বসে বা দাড়িয়ে কোন কাজ করা, মেরুদণ্ডে কোন আঘাত পাওয়া, সর্বোপরি কোমরের অবস্থানগত ভুলের জন্য হয়ে থাকে। অন্যান্য কারনের মধ্যে বয়সজনিত মেরুদণ্ডে ক্ষয় বা বৃদ্ধি, অস্টিওআথ্র্যাটিস বা গেঁটে বাত, অস্টিওপোরেসিস, এনকাইলজিং স্পনডাইলাইটিস, মেরুদণ্ডের স্নায়ুবিক সমস্যা, টিউমার, কান্সার, বোন টিবি, কোমরের মাংসপেশীর সমস্যা,বিভিন্ন ভিসেরার রোগ বা ইনফেকশন, বিভিন্ন স্ত্রীরোগজনিত সমস্যা, মেরুদণ্ডের রক্তবাহী নালির সমসসা, অপুস্তিজনিত সমস্যা, মেদ বা ভুড়ি অতিরিক্ত ওজন ইত্যাদি।
কোমরে ব্যথা। প্রথম দিকে এ ব্যথা কম থাকে এবং ক্রমানয়ে তা বাড়তে থাকে। অধিসকাংশ ক্ষেত্রে চিত হয়ে শুয়ে থাকলে এ ব্যথা কিছূটা কমে আসে। কোমরের সামান্য নড়াচড়া হলেই ব্যথা বেড়ে যায়। কোমরের মাংসপেশি কামড়ানো বা শক্ত হয়ে যাওয়া। ব্যথার কারনে এক দিকে বাকিয়ে যাওয়া। প্রাতিহিক কাজে যেমন নামাজ পড়া, তোলা পানিতে গোসল করা, হাঁটাহাঁটি করা ইত্যাদিতে ব্যথা বেড়ে যাওয়া। অনেক সময় ব্যথা পায়ের দিকে নেমে আসা এবং অবস ভাব বা ঝিনঝিন অনুভূতিও হওয়া। পায়ের পাতার শক্তি কমে যাওয়া বা ফুট ড্রপ ও হতে পারে।
ব্যাক পেইন খুবই যন্ত্রণাদায়ক ব্যাপার।তবে অনেকের ধারণা, ওষুধ না খেলে ব্যাক পেইন ভালো হয় না। এটি একটি ভুল ধারণা। প্রাথমিক অবস্থায় কিছু নিয়ম মেনে চললে ওষুধ ছাড়াই ভালো হতে পারে ব্যাক পেইন। তবে দীর্ঘদিন ব্যথা থাকলে অবশ্যই ডাক্তরের পরামর্শ নিতে হবে। ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া কোনো ওষুধ খাওয়া ঠিক নয়।
ফিজিওথেরাপি চিকিৎসাঃ
প্রথেমেই বিশেষজ্ঞ ফিজিওথেরাপিস্ট রোগের ধরন অনুযায়ী কিছু মানুয়াল টেস্ট ও রেডিওলজিকা্ল টেস্ট করে রোগের উৎপত্তি ও বর্তমান অবস্থা বের করেন। তারপর সেই অনুযায়ী —* প্রথমে বিশ্রাম ও কোমরে বেল্ট বা লাম্বার করসেট ব্যবহার ও কিছু মেডিকেসন যেমন পেইন কিলার, মাসেল রিলাক্সজেন্ট ও কিছু মাল্টিভিটামিন ব্যবহার করেন।
* কিছু পসচারাল ব্যামাম, মবিলাইজেশন, ম্যায়ফিসিয়াল রিলিজ, মাসেল এনার্জি টেকনিক ও মানুপুলেশন দিয়ে ব্যথা নিয়ন্ত্রন এ আনেন।
* এছাও ব্যথার ধরন অনুযায়ী কিছু ইলেক্ট্রোথেরাপি ও ক্রায়োথেরাপি ব্যবহার করে থাকেন।
* সর্বোপরি কোন পার্শ্বপতিক্ক্রিয়া ও অপারেশন ছাড়াই সাত দিন থেকে এক মাসের মধ্যে রোগীকে সুস্থ করে তোলেন।
আসুন জেনে নিই ওষুধ ছাড়াই কীভাবে ভালো হতে পারে ব্যাক পেইনঃ
ঘুমানোর সময় দুই পায়ের নিচে বালিশঃ- শোয়ার সময় দুই পায়ের নিচে বালিশ বা এই জাতীয় কিছু একটা দিয়ে পা উঁচু করে রাখতে হবে।
পিঠ সোজা করে বসাঃ-ব্যাক পেইন হলে পিঠ বাঁকা করে নয়, সোজা হয়ে বাসার অভ্যাস করুন। প্রথমেই আপনাকে যে কাজটি করতে হবে, সেটি হলো পিঠ সোজা করে বসতে ও চলাফেরা করতে হবে।
অফিসের কাজের সময়ঃ-অফিসের কাজের সময় অনেক ক্ষেত্রে দীর্ঘ সময় আপনাকে চেয়ারে বসে থাকতে হয়। অফিসে বা কাজের ক্ষেত্রে বসবার জায়গাটা যেন উঁচু থাকে, সেদিকে লক্ষ্য রাখুন।
ভারী কাজ করা যাবে নাঃ-ভারী পানির বালতি বা ভারী কোনো ব্যাগ বহন করলে ব্যাক পেইন হতে পারে। তাই ভারী কিছু বহন করা যাবে না।
বিশ্রাম নিনঃ-ব্যাক পেইন হলে যেটি করতে হবে, সেটি হলো বিশ্রাম নিতে হবে। ব্যাক পেইন ভালো হওয়ার ক্ষেত্রে বিশ্রামের বিকল্প নেই।
সেঁক ও বরফঃ-ব্যাক পেইন সারাতে সেঁক ও বরফ দেয়া যেতে পারে। কখনও কখনও সেঁক দিলে অথবা বরফ দিলে উপকার পেতে পারেন।  এক্ষেত্রে অনেক দিন ব্যাথা থাকলে গরম সেঁক দেয়া যেতে পারে। আর আঘাত পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ব্যথা সারাতে বরফ দিতে হবে।
বাইসাইকেল ও মোটরসাইকেলঃ-বাইসাইকেল ও মোটরসাইকেল চালানোর কারণে ব্যাক পেইন হতে পারে। এক্ষেত্রে বাইসাইকেল চালানো পরিহার করতে হবে।
ডাক্তারের পরামর্শ ব্যায়ামঃ-ব্যাক পেইন সারাতে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী ব্যায়াম করা যেতে পারে। ব্যথা ভালো হওয়ার জন্য অনেক সময় ব্যায়াম খুব কাজে দেয়।
ওষুধ সেবনঃ-ব্যথা অনেক বেশি হলে পেইনকিলার খেতে পারেন কিন্তু ক্লোফেনাক ধরনের ওষুধ বেশি খাওয়া ভালো না। এসব ওষুধ খাবার আগে অবশ্যই অ্যান্টাসিড জাতীয় ওষুধ খেয়ে নেবেন। ব্যাক পেইন হলে ডাক্তারের পরামর্শ নিন। ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া কোনো ওষুধ সেবন করা উচিত নয়।
পরামর্শঃ কোমরে ব্যথা হলেই বিশেষজ্ঞ ফিজিওথেরাপিস্ট এর সাথে যোগাযোগ করুন, সঠিক ব্যামামের পরামর্শ নিন ব্যামাম করুন শেখানো নিয়ম অনুযায়ী ও সুস্থ থাকুন।

About নওরীন জাহান

View all posts by নওরীন জাহান →